ঈদের আগেই গণপরিবহন চালু: কাদের

জনস্বার্থের কথা বিবেচনায় নিয়ে ঈদের আগেই গণপরিবহন চালু করার কথা জানিয়েছেন সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।তিনি বলেন, লকডাউনের পর জনস্বার্থের কথা বিবেচনায় রেখে সরকার ঈদের আগে গণপরিবহন চালুর ব্যাপারে চিন্তাভাবনা করছে।

শনিবার (০১ মে) তার সরকারি বাসভবনে নিয়মিত ব্রিফিংয়ের সময় তিনি এ কথা বলেন।রোববার থেকে গণপরিবহন চালু করতে যে বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দিয়েছে পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা তার পরিপ্রেক্ষিতে এ কথা বলেন মন্ত্রী।

তিনি আন্দোলন, বিক্ষোভে না গিয়ে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের ধৈর্য ধরারও আহ্বান জানান।প্রসঙ্গত, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় সরকার জনসমাগম এড়াতে প্রথমে ৫ থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে। পরে এ নিষেধাজ্ঞা আরও বাড়িয়ে ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত করা হয়। তবে সে সময় সরকারি-বেসরকারি অফিস, শিল্পকারখানা, গণপরিবহন চালু ছিল।

এরপর সরকার ১৪ এপ্রিল থেকে সর্বাত্মক লকডাউনে যায়, যাতে বন্ধ ছিল গণপরিবহন এবং দোকানপাট। সরকারের সর্বশেষ নির্দেশ অনুযায়ী, আগামী ৫ মে পর্যন্ত গণপরিবন বন্ধ থাকছে।

বিনামূল্যে অক্সিজেন দিচ্ছে আবুল খায়ের গ্রুপ

করোনায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিতে হাসপাতালগুলোতে অক্সিজেন সংকট লাঘবে এগিয়ে এসেছে দেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় শিল্প প্রতিষ্ঠান আবুল খায়ের গ্রুপ। চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড উপজেলার শীতলপুরে (সোনাইছড়ি) অবস্থিত আবুল খায়ের স্টিল প্লান্ট থেকে অক্সিজেন সরবরাহ করতে নতুন একটি ইউনিট স্থাপন করা হয়েছে। গত বছর মহামারি করোনার শুরু থেকে তারা বিনামূল্যে অক্সিজেন দিয়ে আসছিল।

দেশে মহামারি করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় মেডিকেল অক্সিজেনসংকট দূর করতে এবারো এগিয়ে এলো দেশের স্বনামধন্য এ শিল্প প্রতিষ্ঠান। এ লক্ষ্যে সরকারি উদ্যোগের সহযোগী হিসেবে সারাদেশের সরকারি হাসপাতালে

প্রয়োজনীয় লিকুইড অক্সিজেন সরবরাহ করবে এ প্রতিষ্ঠান। বুধবার বিকাল সাড়ে ৪টায় চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড উপজেলার সোনাইছড়ির শীতলপুর এলাকায় অবস্থিত একেএস অক্সিজেন কারখানায় এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির সিইও মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ, অক্সিজেনপ্ল্যান্টের জিএম নজরুল ইসলাম, অক্সিজেন প্ল্যান্টের ডিজিএম এনপি গৌর, এজিএম মো. সামসুদ্দোহা এবং এইচআর এ্যান্ড এডমিন এর সিনিয়র ম্যানেজার ইমরুল কাদের ভূঁইয়া।

কর্মকর্তারা জানান, ২০২০ সালে করোনা মহামারী শুরু হলে একেএস প্ল্যান্টে উৎপাদিত অক্সিজেন জনস্বার্থে উন্মুক্ত করে দেয় আবুল খায়ের গ্রুপ। প্রতিদিন ২৬০ টন অক্সিজেন উৎপাদন সক্ষমতাসম্পন্ন দেশের বৃহত্তম এই অক্সিজেন প্ল্যান্ট থেকে ১০ হাজারেরও বেশি ব্যক্তিকে ও হাসপাতালকে অক্সিজেন প্রদান করা হয়েছে রিফিলের মাধ্যমে। ৫ হাজারেরও বেশি সিলিন্ডার প্রদান করা হয়েছে।

বুধবার উদ্বোধনকালে প্রতিষ্ঠান দুটিকে ২২ টন লিকুইড মেডিকেল অক্সিজেন সরবরাহ করা হয়েছে। এসব অক্সিজেন সরবরাহ থেকে প্রাপ্ত অর্থ প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে প্রদান করা হবে জানিয়েছেন আবুল খায়ের গ্রুপের কর্মকর্তারা।

Facebook Comments Box