কুমিল্লায় ‘কোরআন অবমাননা’ যা বললেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

কুমিল্লা নগরীর একটি পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরীফ অবমাননা করার খবরে যে সংঘর্ষ হয়েছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।বুধবার রাতে রাজধানীর খামারবাড়িতে পূজামণ্ডপ পরিদর্শনকালে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, কুমিল্লার ঘটনায় যারাই জড়িত তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে, কেউ ছাড় পাবে না।বুধবার দুপুরে কুমিল্লায় পবিত্র কুরআন শরিফ অবমাননার খবর ছড়িয়ে পড়লে বিভিন্ন স্থানে পুলিশ ও বিক্ষুব্ধ জনতার মাঝে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। এসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ফাঁকা গুলি ও টিয়ার শেল ছোড়ে।

এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।এদিকে কুরআন অবমাননার অভিযোগের পর উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ায় জেলা শহরে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া সেখানে আসলে কী ঘটেছে তা খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

Read More – আমরা বিবেকবান মানুষ: আইভী

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, আমরা বিবেকবান মানুষ। একবার বুকে হাত দিয়ে চিন্তা করুন, এই সিদ্ধিরগঞ্জে আমি কী পরিমাণ কাজ করেছি। এমন কোনো ওয়ার্ড নেই যেখানে রাস্তাঘাট পাকা হয়নি, ড্রেন হয়নি। আপনার কাছে কারও বিরুদ্ধে কিছু বলে ছোট বা বড় করার মানসিকতা আমার নেই। আমি কাজ পাগল মানুষ, কাজ নিয়েই থাকি। যদি দেখেন আমি সঠিক কাজ করছি তাহলে আমাকে সাপোর্ট করবেন, নয়তো করবেন না।

বুধবার (১৩ অক্টোবর) সিদ্ধিরগঞ্জে নাসিক ৬ নম্বর ওয়ার্ডে সিটি করপোরেশনের আঞ্চলিক কার্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।মেয়র আইভী বলেন, আমি আপনাদের মাঝে আবার আসি কি না, তা জানি না। কিন্তু যেই আসুক না কেনো, এ কাজগুলো করে দিতে সে বাধ্য থাকবে। কারণ আমি অনেকগুলো কাজ শুরু করে দিয়েছি। আল্লাহ যাকে পছন্দ করবে তার হাত দিয়েই কাজ করাবে। ৬ নম্বর ওয়ার্ডের মেইন রাস্তাটা আমি করতে পারিনি। ডিএনডি কর্তৃপক্ষের অনুরোধে এ কাজ বন্ধ রেখেছি। কারণ এখান দিয়ে পাম্প চালু হবে। পরবর্তীতে তারা রাস্তাটা আবার করে দেবে।

এছাড়া দু-একটা ছোটখাটো রাস্তা, ড্রেন বাদে কোনো কাজ বাকি নেই। আমরা ভবিষ্যতে সেগুলো করে দেবো।তিনি বলেন, ৩৬ কাউন্সিলরের মধ্যে আমি কখনও ভেদাভেদ করিনি, করবোও না। আমি কখনও চিন্তা করিনি কে কোন দল করে বা কে কার লোক। আমি চেষ্টা করেছি আমার জনগণকে প্রাধান্য দিতে। সাধারণ মানুষ যা করতে বলেছে তাই করেছি। চেষ্টা করেছি আপনাদের কথামত কাজ করতে।

মেয়র আইভী বলেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে বড় একটা ওয়াটার প্ল্যান্ট দিতে পারবো। আমরা সে প্রকল্পের কাজ করার চেষ্টা করছি। পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, যার বাড়িতে ডিপ আছে এবং সেখান থেকে পানি উত্তোলন করছেন, সেটারও একটা ফি আছে। সেই টাকাটা সব জায়গায় তিন শতাংশ, সে অনুযায়ী ধরেছি। যদি সিটি করপোরেশন বিভিন্নভাবে লাভবান হয় তাহলে অবশ্যই জনগণকে ট্যাক্স কমিয়ে সুবিধা দেওয়ার চেষ্টা করবো।

তিনি আরও বলেন, সিদ্ধিরগঞ্জে জায়গার পরিমাণ খুবই কম। ফলে মাঠ, পার্ক করতে একটু অসুবিধা হয়ে যাচ্ছে। তখনই দেখলাম কাজ করার জন্য এই অঞ্চলে বিশাল বড় একটা লেক আছে। এই লেকের কাজ আমরা সম্পূর্ণ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে করছি। প্রায় একশ কোটি টাকার কাজ এটি। প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে কাজ করার চেষ্টা করছি।

Facebook Comments Box