কুমিল্লায় বিকট শব্দে ধসে পড়ল ৪ তলা ভবন

কুমিল্লার বুড়িচংয়ে বিকট শব্দে ধসে পড়েছে একটি চার তলা হিমাগার ভবন। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। (৮ জুন ২০২১)মঙ্গলবার সকাল ৬টায় উপজেলার ৭ নং মোকাম ইউনিয়নের কাবিলা বাজারে অবস্থিত মোকাম কোল্ড স্টোরেজে এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করে মোকাম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. ফজলুল হক মুন্সী বলেন বিডি২৪লাইভকে, ভবনটি ৩০-৪০ বছর আগের করা। সকালে বিকট শব্দে ভবনটি ভেঙে পড়ে।

তিনি আরও বলেন, আমরা ধারণা করছি কম্প্রেসার বিস্ফোরণে এ ঘটনা হতে পারে। তবে তা নিশ্চিত নয়। সকালে ভেঙে পড়ার সময় ভেতরে কোনো শ্রমিক ছিল না। তবে ভবনের এক পাশে গরু ছাগলের খামার রয়েছে। কয়েকটা গরু ছাগল মারা যেতে পারে। ঘটনাস্থলে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে।

কুমিল্লা ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার আলী আজম জানান, কম্প্রেসার বিম্ফোরণ নাকি অন্য কারণে ভবনটি ভেঙে পড়েছে তা এখনও নিশ্চিত নয়। কুমিল্লা সদর ও চান্দিনা থেকে ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিট উদ্ধার কাজ করছে। এ ঘটনায় কোনো প্রাণহানি হয়নি। খামার থেকে গরু-ছাগলগুলো উদ্ধার করা হচ্ছে। তদন্ত করে ভবন ভেঙে পড়ার কারণ জানা যাবে। হিমাগারে ৭০ হাজার মণ আলু ছিল।

Read More – চাকরির পর এবার প্রধানমন্ত্রীর কাছ

জীবনযুদ্ধে জয়ী হওয়া শারীরিক প্রতিবন্ধী আকলিমার আক্তারের খবর ইত্তেফাক অনলাইনে প্রকাশের পর এবার প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে পেলেন ল্যাপটপ উপহার। রবিবার (৬ জুন) অনলাইনে যুক্ত হয়ে আকলিমাকে ল্যাপটপটি প্রদান করেন তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক।

এ সময় প্রতিমন্ত্রী বলেন, শারিরীক প্রতিবন্ধী ও সমাজের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের উন্নয়নে কাজ করছে সরকার। এ সময় প্রতিমন্ত্রীর সাথে যুক্ত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি।

জামালপুর পৌরসভার কম্পপুর গ্রামের কৃষক আলতাফ হোসেনের কন্যা আকলিমা আক্তর, অন্য দশজন শিশুর মত স্বাভাবিকভাবে জন্ম নিলেও ছয়মাস বয়সে টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত হয়ে পা দু’টি অবশ হয়। তারপর থেকেই জীবন যুদ্ধ থেমে থাকেনি আকলিমার। মায়ের কোলে চড়ে স্কুলে যান আকলিমা। পরবর্তীতে হামাগুড়ি দিয়ে সিঁড়ি বেয়ে একে একে সাফল্যের সাথে স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের গণ্ডি পেরিয়ে মাস্টার্স পাশ করেন। পাশাপাশি তিনি কম্পিউটার প্রশিক্ষণে প্রশিক্ষিত হয়ে উঠেন।

শিক্ষা জীবন শেষ করে তিনি চাকরির জন্য সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে চাকরি সহযোগিতা পাননি। এমনকি তার জন্য এগিয়ে আসেনি কেউ। অবশেষে গত ১৭ মে জামালপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ ছানোয়ার হোসেন ছানু আকলিমাকে তার পৌরসভা কম্পিউটার অপারেটর পদে চাকরি দেন। এই খবরটি ইত্তেফাক অনলাইনে প্রকাশ হলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নজরে আসে।

শারীরিক প্রতিবন্ধি আকলিমা আক্তার তার চাকরি ও ল্যাপটপ প্রদান করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পৌর মেয়র ছানোয়ার হোসেন ছানু, তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপিসহ সকলের প্রতি তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। সুত্র: ইত্তেফাক

Facebook Comments Box