খুলনায় বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ৮ চীনা করোনা আক্রান্ত, আতঙ্কে এলাকাবাসী

খুলনায় নির্মিতব্য ৩৩০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্রে কর্মরত আট চীনা নাগরিক করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এতে করে এলাকাবাসীর মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।খুলনা বিদ্যুৎ কেন্দ্র সূত্রে জানা যায়, গত ২২ এপ্রিল ১০ জন চীনা নাগরিকের করোনা টেস্ট করানো হয়। এর মধ্যে আটজনের করোনা পজিটিভ আসে। কর্তৃপক্ষ তিনজনকে উন্নত চিকিৎসা জন্য ঢাকা পাঠিয়েছে।

আক্রান্ত অন্য পাঁচজনকে খুলনা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অভ্যন্তরে আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে বলে জানান প্লান্টের উপ-পরিচালক (ডিপিডি) প্রকৌশলী মো. জাহিদ হোসেন।এদিকে খুলনা বিদ্যুৎ কেন্দ্রে চীনা নাগরিকরা করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় আতঙ্কে রয়েছেন এলাকাবাসী। অবিলম্বে এলাকাটিকে লকডাউন ঘোষণা করে প্রশাসনিক তৎপরতা বাড়ানোর জোর দাবি তাদের।

২০১৮ সালে ৩৩০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ প্লান্টটির কাজ শুরু হয়। এখানে ৩০০ জন চীনা নাগরিক বিভিন্ন পদে কর্মরত রয়েছেন।

Read More – ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল দেশ

আজ সকালে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। আজ বুধবার (২৮ এপ্রিল) সকাল ৮টা ২৫ মিনিটের দিকে এ ভূমিকম্প অনুভূত হয়।

মার্কিন ভূ-তাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা (ইউএসজিএস) জানায়, ভূমিকম্পে রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৬ দশমিক ২।

ভূমিম্পের উৎপত্তিস্থল ছিল ভারতের অসমের গুয়াহাটির কাছে শোনিতপুরে। এ ভূমিকম্পে কেঁপে উঠে উত্তরবঙ্গের একাধিক জেলা। কম্পন অনুভূত হয় দক্ষিণবঙ্গেও।

বাংলাদেশ ও ভারত ছাড়াও মিয়ানমার, ভুটান ও চীনের বিভিন্ন স্থানেও এ ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

আরও পরুন= এখন সারা দেশেই চলছে তাপপ্রবাহ। গত দুই দিনের তুলনায় তাপমাত্রা সামান্য কমলেও দাবদাহ অব্যাহত রয়েছে এবং সামনে তা কমে যাবে। তবে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় ঢাকার দু’একটি এলাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় ঝড়বৃষ্টির আভাস দিয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আজ মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) সন্ধ্যা ছয়টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, কুমিল্লা ও কুষ্টিয়া অঞ্চলসহ রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, সিলেট ও ঢাকা বিভাগের দু’একটি জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকাসহ বজ্র বৃষ্টি হতে পারে।

এছাড়া, দেশের অন্যসব এলাকায় অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।পূর্বাভাসে আরও বলা হয়, সীতাকুন্ড, হাতিয়া, রাঙামাটি, কুমিল্লা, মাইজদীকোর্ট, ফেনী, রাজশাহী ও পাবনা অঞ্চলসহ ঢাকা, রংপুর, খুলনা, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের উপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা কিছু জায়গায় প্রশমিত হতে পারে।তাপমাত্রায় বলা হয়েছে,

দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য বেড়ে যেতে পারে। মঙ্গলবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে রাজশাহীতে ৩৮.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।এছাড়া, আগামী পাঁচ দিনের আবহাওয়ার অবস্থা পরিবর্তন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ওই সময় কালবৈশাখীর আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

Facebook Comments Box