দেশে ২৪ ঘন্টায় করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত দুটোই কমেছে

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট দেশে করোনায় মারা গেলেন ২৭ হাজার ১৮২ জন। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১ হাজার ১৯০ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ লাখ ৪১ হাজার ৩০০ জন।গত ২৪ ঘন্টায় ১৯ হাজার ৬৬৮টি নমুনা পরীক্ষার অনুপাতে শনাক্তের হার ৬.০৫ শতাংশ। শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

এদিকে, বিশ্বে করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণ ও মৃত্যু কমেছে, সেই সঙ্গে কমেছে সুস্থতার হারও। মহামারি শুরুর পর থেকে এ রোগে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হালনাগাদ তথ্য প্রদানকারী ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার্স এ তথ্য জানিয়েছে। ওয়ার্ল্ডোমিটার্সের পরিসংখ্যান বলছে, শুক্রবার বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫ লাখ ৫৮ হাজার ৮৩৩ জন এবং এ রোগে মৃত্যু হয়েছে ৮ হাজার ৮৪৩ জনের। তাছাড়া, এই দিন করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪ লাখ ৫৭ হাজার ৩৮১ জন। ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা কমেছে ২৩ হাজার ৩৭০ জন এবং মৃতের সংখ্যা কমেছে ৬০৪ জন। পাশাপাশি, এই সময়সীমার মধ্যে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তির সংখ্যা কমেছে ৭৯ হাজার ৩৯৭ জন।

বৃহস্পতিবারের মতো শুক্রবারও করোনায় নতুন আক্রান্ত ও মৃত্যুর হিসেবে বিশ্বের দেশসমূহের মধ্যে শীর্ষে ছিল যুক্তরাষ্ট্র। ওয়ার্ল্ডোমিটার্সের তথ্য অনুযায়ী, এই দিন দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫৬ হাজার ৯৩৪ জন এবং এ রোগে মারা গেছেন ১ হাজার ৯৩২ জন। করোনায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৪ কোটি ২৭ লাখ ৯৯ হাজারের বেশি মানুষের।

এছাড়া মৃত্যু হয়েছে ৬ লাখ ৯০ হাজার ৭১৪ জনের। করোনায় হতাহতের দিক থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩ কোটি ৩৪ লাখ ১৫ হাজারের বেশি মানুষের। এই মারণ ভাইরাসে মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ৪৪ হাজার ৫৬৩ জনের। তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ব্রাজিল। দেশটিতে করোনা শনাক্ত হয়েছে ২ কোটি ১১ লাখ ২ হাজারের বেশি মানুষের। মৃত্যু হয়েছে ৫ লাখ ৮৯ হাজার ৭৪৪ জনের। তালিকায় ২৮ নম্বরে থাকা বাংলাদেশে করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৫ লাখ ৪০ হাজার ১১০ জনের এবং মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ১৪৭ জনের।

এখন করোনা রোগী রয়েছেন ১৫ হাজার ৯৫৪ জন। এদের মধ্যে ১৪৬৪ জনের অবস্থা গুরুতর। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জোরকদমে চলছে টিকাদান। এরই মধ্যে বেশিরভাগ দেশ তাদের প্রাপ্তবয়স্ক জনসংখ্যার বেশিরভাগকে টিকা দিয়ে ফেলেছে। টিকা দেয়ার হার বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে শিথিল করা হয়েছে করোনা বিধিনিষেধ। এরই মধ্যে বেশিরভাগ দেশ স্বাভাবিক কার্যক্রম শুরু করেছে। তুলে নেয়া হয়েছে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে কোয়ারেন্টাইন এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রে টিকা নেয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

Facebook Comments Box