ফের ৭ দিনের রিমান্ডে মামুনুল

হেফাজতের তাণ্ডবের ঘটনায় করা মামলায় হেফাজতে ইসলামের বিলুপ্ত কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সাধারণ সম্পাদক মামুনুল হকের ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। আজ সোমবার (২৬ এপ্রিল) ঢাকা মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াসির আহসান চৌধুরি শুনানি শেষে এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মোহাম্মদপুর থানার নাশকতার মামলায় সাত দিনের রিমান্ড শেষে তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় ২০১৩ সালে রাজধানীর শাপলা চত্বরে হেফাজতের তাণ্ডবের ঘটনায় মতিঝিল থানার মামলা ও চলতি বছরের মার্চে বায়তুল মোকারমে হেফাজতের তাণ্ডবের ঘটনায় পল্টন থানার মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে দশ দিন করে মোট বিশ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ।

এর আগে ২০২০ সালের মোহাম্মদপুর থানায় ভাঙচুর ও নাশকতার একটি মামলায় গত ১৯ এপ্রিল তার সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। সেই রিমান্ড আজ শেষ হওয়ায় সকালেই তাকে আবারও আদালতে হাজির করে পুলিশ।

এর আগে রোববার (২৫ এপ্রিল) হেফাজতে ইসলামের নেতা মামুনুল হকের বিরুদ্ধে আরও দুটি মামলা করা হয়েছে। মামলায় ২৬ এপ্রিল বায়তুল মোকাররম মসজিদ এলাকায় হত্যার উদ্দেশ্যে মারধর ও মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে। ফলে মামুনুল হকের বিরুদ্ধে হওয়া মোট মামলার সংখ্যা হলো ২০। রাজধানীর পল্টন থানায় আবাব আহমেদ রজবী ও মো. রুমাম শেখ নামের দুই ব্যক্তি বাদী হয়ে মামলা দুটি করেন। দুটি মামলায়ই হেফাজতের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুলকে প্রধান আসামি করা হয়েছে।

আবাব আহমেদ রিজভীর করা মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, মামুনুল হকের হুকুমে হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব লোকমান হাকিম হাতে থাকা লোহার পাইপ দিয়ে অতর্কিতে তাঁর মাথায় বাড়ি মারেন। প্রাণ বাঁচাতে তিনি সরে যান। তখন আঘাতটি তাঁর পায়ে লেগে জখম হয়। আঘাতে তিনি মাটিতে পড়ে যান। এই অবস্থায় যুগ্ম মহাসচিব জুনায়েদ আল হাবিব ও নাসির উদ্দিন মনির হাতে থাকা বাঁশের লাঠি দিয়ে তাঁর শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে আহত করেন।

অপর মামলার বাদী রুমাম একটি জাতীয় দৈনিককে বলেন, ওই দিন তিনি নামাজ পড়তে মসজিদে গিয়েছিলেন। নামাজ শেষে তাঁকে প্রচণ্ড মারধর করা হয় এবং বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেটে রাখা মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেওয়া হয়।

এই ব্যাপারে ঢাকা মহানগর পুলিশের মতিঝিল অঞ্চলের সহকারী কমিশনার জাহিদুল ইসলাম বলেন, মামলা দুটি পল্টন থানা নাকি গোয়েন্দা বিভাগ তদন্ত করবে, সে বিষয়ে পরবর্তী সময়ে সিদ্ধান্ত হবে। উল্লেখ্য, গত ১৮ এপ্রিল মোহাম্মদপুরের একটি মাদ্রাসা থেকে মামুনুলকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

Facebook Comments Box