‘মরার উপর খাড়ার ঘা’ সিলেটবাসীর বন্ধ হচ্ছে জীবন চালিকা শক্তি

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে লকডাউন শেষ হতে না হতেই সিলেটবাসীর মাথার উপর দাঁড়িয়েছে ভূম্পিকম্প আতঙ্ক। ভূম্পিকম্পে সিলেটের ঝুঁকিপূর্ণ মার্কেট গুলো বন্ধ থাকায় অনাহারে অর্ধাহারে মানবেতর দিনযাপন করছে হাজার হাজার ব্যাবসায়ী পরিবার। একদিকে করোনা-অপরদিকে ভূম্পিকম্পে মার্কেট বন্ধ থাকায় সিলেটবাসীর জন্য ‘মরার উপর খাড়ার ঘা’ হয়ে পড়েছে।

বন্ধ হয়ে যাচ্ছে মানুষের জীবন চালিকা শক্তি। বেজে ওঠতে শুরু করেছে মহাদুর্ভোগ ও দুর্ভিক্ষের ঘনঘন্ট। দেশের স্বর্ণের খনি বলে খ্যাত পাথর-বালুময় সিলেটের গোয়াইনঘাট, কোম্পানীগঞ্জ ও কানাইঘাট কোয়ারী গুলো বন্ধ থাকায় লাখ লাখ বণি আদমের এখন যাওয়ার কোন জায়গা নেই। সূযোগ নেই বন্দুকের নলের মূখে সীমান্ত পেরিয়ে ভারত চলে যাওয়ার।

এদিকে এক সপ্তাহের ব্যবধানে আবারও ভূম্পিকম্পে কেঁপে উঠেছে সিলেট। গতকাল সোমবার সন্ধ্যা ৬টা ২৯ মিনিটে ও ৬টা ৩০ মিনিটের দিকে দুই দফা ভূমিকম্পে আতঙ্কে ছড়িয়ে পড়ে। সবগুলো ভূমিকম্পের উৎস ছিল সিলেট অঞ্চলেই। বাংলাদেশের একটি অঞ্চল থেকে ভূমিকম্প উৎপত্তি হবার নজিরবিহীন ঘটনা বিশেষজ্ঞদেরও ভাবিয়ে তুলেছে। তারা বলছেন, বড় ভূমিকম্পের আগে বা পরে এমন দফায় দফায় মৃদু কম্পন হতে পারে।

এর আগে সর্বশেষ গত ৩০ মে মৃদু ভূমিকম্প অনুভূত হয়। ওইদিন ভোর ৪টা ৩৫ মিনিট ৭ সেকেন্ডে দুই দশমিক ৮ মাত্রার ভূ-কম্পন অনুভূত হয়। তার আগের দিন অর্থাৎ ২৯ মে দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের একদিনে চার দফা ভূ-কম্পন অনুভূত হয় সিলেটে। এর উৎপত্তিস্থল সিলেটের জৈন্তাপুর ও এর আশপাশে ছিল।

এদিকে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক মেহেদী আহমেদ আনসারী বলেন, ভূমিকম্পের জন্য বাংলাদেশের সিলেট অঞ্চল আগে থেকেই ঝুঁকিতে আছে। এই অঞ্চলে অতীতে তিনবার বড় ধরনের ভূমিকম্প হওয়ার ইতিহাস আছে। ফলে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

Facebook Comments Box