মুমূর্ষ নবজা’তকও পেল না ফেরির দেখা,নি’স্তেজ হয়ে ফিরলো-বাংলাবাজার ঘাটে অমা’নবিক বিআইডব্লিউটিসি

কয়েক ঘন্টা আগেই জন্মেছে নবজা’তক শিশুটি। শ^াস কষ্টে মু’মূর্ষ পরিস্থিতি হওয়ায় মা আখিকে হাসপাতালে রেখেই নব’জাত’কটিকে নিয়ে স্বজনরা ছুটছে ঢাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য। কিন্তু বাংলাবাজার ঘাটে ঘন্টার পর ঘন্টা দা’ড়িয়ে থেকেও হাজারো আ’কুতি মিনতি করেও মিলনো না ফেরির দেখা।

উন্নতির বদলে ঘাটে দীর্ঘ সময় আ’টকে থেকে আরো নি’স্তেজ হয়ে পড়া শিশু’টিকে নিয়ে শেষ পর্যন্ত শরিয়তপুরেই ফিরে যেতে বাধ্য হলো স্বজনরা। রবিবার বাংলাবাজার ঘাটে এ্যাম্বু’লেন্সের ক্ষেত্রেও এমন কঠোর ভূমিকা দেখায় বিআইডব্লিউটিসির কর্ম’কর্তারা।

এদিকে মাছ,তরমুজসহ কাচামালে পচন ধরায় বাংলাবাজার ঘাটে বিআইডব্লিউটিসি ও পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভের ঘটনা ঘটেছে। জরুরী রুগীরা ঢাকা ও দক্ষিনাঞ্চলের জেলাগুলো থেকে মটরসাইকেল, ৩ চা’ক্কার যানবাহনে এসে ঘাটে ও গন্তব্যে কয়ে’কগুন ভাড়া গুনে পৌছাচ্ছেন।

বিআইডব্লিউটিসিসহ ঘাট সুত্রে জানা যায়, যাত্রী নিয়’ন্ত্রনে যেন কোন বিধি নিষেধই মানতে চাইছেন না দক্ষি’নাঞ্চলের যাত্রীরা। রবিবার সকাল থেকে বিকেলে বাংলাবাজার ঘাট থেকে ২টি ফেরি জরুরী এ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরী যানবাহন নিয়ে পার হয়। তবে যাত্রীদের চাপে জরুরী যানবাহন তোলা পুলিশ ও বিআইডব্লিউটিসিকে বেগে পড়তে হয়।

শিমুলিয়া থেকে যে কয়টি ফেরি এসেছে সেগুলোতে যাত্রী চাপে পা ফেলানোর জায়গা ছিল না। সকাল থেকেই উভয় পাড়ে যাত্রী ও যানবাহনের প্রচন্ড ভীড় শুরু হয়। বেলা বাড়ার সাথে যাত্রী ও যানবাহনে শয়লাব হয়ে যায় ঘাট এলাকা।

ঘাট থেকে ঘন্টার পর ঘন্টা ফেরির জন্য অপেক্ষা করছেন যাত্রী ও যানবাহনগলো। ঘাট পার হয়ে মটরসাইকেল, ৩ চাক্কার যানবাহনে এসে ঘাটে ও গন্তব্যে কয়েকগুন ভাড়া গুনে পৌছাচ্ছেন। অনেকে এ্যাম্বুলেস্নে যাত্রী বেশে পার হওয়ার চেষ্টা করেন।

শরীয়তপুরের আটং এলাকার নবজাতকটির খালা বলেন, কয়েক ঘন্টা আগে শিশুটি হয়েছে। ওর মা এখনো বেডে। বাচ্চাটির শ^াস কষ্ট হওয়ায় ওকে ঢাকা নিচ্ছিলাম। কিন্তু কোন কিছুতেই ফেরি ছাড়লো না। বাচ্চাটি আরো নিস্তেজ হয়ে যাচ্ছে।

তাই আবার শরীয়তপুর হাসপাতালেই ফিরে যাচ্ছি।
আরেক ১৫ দিনের নবজাতক রেদোয়ানের মা লাবনী বেগম বলেন, বাচ্চাটি খুব অসুস্থ তাই ঢাকায় যাচ্ছি। কিন্তু ফেরি ছাড়ছেই না। কি যে করবো এসে ভুল করলাম। রুগীরাও পার হতে পারবে না । এটা কেমন নিয়ম ?

বিআইডব্লিউটিসির বাংলাবাজার ঘাট ম্যানেজার মোঃ সালাউদ্দিন বলেন, উর্ধ্বতন কত্তৃপক্ষ ফেরি বন্ধ রাখতে বলেছে তাই বন্ধ। জরুরী এ্যাম্বুলেন্স বা রোগীর কথা বললে তিনি বলেন , ফেরি বন্ধ।

Facebook Comments Box