যুক্তরাষ্ট্রে এ’সিড হাম’লার শি’কার মুসলিম তরু’ণী, হাম’লা’কারী পলা’তক

যুক্তরাষ্ট্রে এসি’ড হা’ম’লার শি”কার হয়েছেন এক মু’সলিম তরুণী। ওই তরুণীর নাম নাফি’য়া ইকরাম। নিউ’ইয়র্ক শহরে’র লং আই’ল্যান্ড এলাকায় গত ১৭ মার্চ এ’ই হাম’লার ঘট’না ঘটে। কিন্তু শুক্র’বার (২৩ এপ্রিল) গণমাধ্যমে এই খবর প্রকা’শিত হয়। আন্ত’র্জাতিক সংবাদমাধ্যম নিউ’ইয়র্ক টাইমস ও এন’বিসি নি’উজের খবরে এই তথ্য জানানো হয়।

ঘটনা’র দিন নাফি’য়া ও তাঁর মা তাঁদের গাড়ি থেকে নাম’তে গেলে অ’জ্ঞাত হা’মলা’কারী নাফি’য়ার মুখে এসি’ড নিক্ষে’প করে। হোফ’স্ট্রা বিশ্ববিদ্যা’লয়ের মে’ডিকেল শি’ক্ষার্থী না’ফিয়াকে তা’ৎক্ষ’ণিকভাবে হাস’পাতালে নেও’য়া হয়। এসি’ডে পাকি’স্তানি বংশো’দ্ভূত এই মুসলিম তরু’ণী’র মুখ পুড়ে যায় এবং অ’ন্ধ হয়ে যাওয়ার উপ’ক্রম দেখা দেয়।

হাম’লার এক’মাস পে’রিয়ে গেলেও নিউই’য়র্ক পুলিশ সন্দে’ভাজ’ন হাম’লাকারী’কে এখনো ধর’তে পারেনি। হাম’লাকা’রী স’ন্ধান পেতে ১০ হা’জার মা’র্কিন ডলার পুর’স্কা’রও ‘ঘোষ’ণা করেছে পুলি’শ।

যুক্ত’রাষ্ট্রের মু’সলিম মান’বাধি’কার সংস্থা কাউন্সি’ল অন আমে’রিকান-ইসলা’মিক রিলে”শন্স (কেয়ার) এক বি’বৃতিতে জানা’য়, মুখ, চোখ, ঘাড় ও দুই হাতে পো’ড়া ক্ষ’ত নিয়ে নাফি’য়াকে ১৫ দিন হাস’পাতালে কা”টাতে হয়েছে।

এসি’ড হামলা’র সময় এই মুস’লিম তরুণী চিৎ’কার করলে তাঁর মু’খের মধ্যে এসি’ড ‘ঢুকে যায়। এতে করে তিনি শ্বা’সক’ষ্টেও ভো’গেন। নাফিয়া’কে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে তাঁর মা-বাবাও আ’হত হন।

না’ফিয়ার চিকিৎসার জন্য অনলাইনে আ’হ্বান করা গণত’হবিলে তিন লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলা’রের বেশি সংগ্রহ হয়েছে বলে জানিয়েছে এনবিসি নিউজ।

Facebook Comments Box